ব্রেকিং নিউজ

চুয়েটে অনলাইনভিত্তিক ফেস দ্যা কেস প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন ‘টিম রেভেনক্ল’

চুয়েটনিউজ২৪ডেস্ক:

টান টান উত্তেজনা, এক দিকে প্রতিযোগীরা প্রেজেন্টেশন দিতে ব্যস্ত, অন্যদিকে বিচারকরা ব্যস্ত তাদের প্রশ্নের মাধ্যমে অনুষ্ঠানকে আরো উপভোগ্য করে তুলতে । চলছে হোস্টিং, চলছে একের পর এক অসাধারণ প্রেজেন্টেশন। এমন অসাধারণ ভিডিওচিত্র দেখা যাচ্ছিলো গত শনিবার (১৩ই জুন) আইইইই স্টুডেন্ট ব্রাঞ্চ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) কর্তৃক আয়োজিত ন্যাশনাল অনলাইনভিত্তিক প্রোগ্রাম ” Face The Case Competition 2020″ এর পুরো আসর জুড়ে।

করোনার এই ক্লান্ত সময়কে উপযোগী ও সঠিক ব্যবহারের উদ্দেশ্যে  ইনস্টিটিউট অব ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ার্স (আইইইই) এর চুয়েট শাখা  আয়োজন করেছিলো অনলাইন কেইস সমাধান প্রতিযোগিতা। গত ৩০মে পর্যন্ত প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার জন্য অনলাইন রেজিস্ট্রেশনের মাধ্যমে ৩৯ টি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সর্বমোট  ১৪৭ টি টিম অংশগ্রহণ করে। ২রা জুন প্রতিযোগীদের কেইস প্রদানের মাধ্যমে শুরু হয় প্রথম রাউন্ড। ৫ই জুন ছিল কেইস এর সলভ জমা দেওয়ার শেষ দিন৷

আয়োজকেরা জানান, প্রথম রাউন্ডে জমা হওয়া অসাধারণ সব আইডিয়া থেকে সেকেন্ড রাউন্ডের জন্য টিমগুলা বাছাই করতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে বিচারকগণকে। ৭ই জুন ১ম পর্বের ফলাফল প্রকাশের মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে ২৭ টি দল বাছাই করা হয় ফাইনাল রাউন্ডের জন্য। বাছাইকৃতদের ফাইনাল রাউন্ডের জন্য কেইস দেয়া হয়। আর সেসকল কেইসের সমাধান নিয়ে অনলাইন প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করতে গত ১৩ই জুন অনলাইন প্ল্যাটফর্মে হাজির হয় চূড়ান্ত পর্বের প্রতিযোগীরা। এই অনলাইন প্রতিযোগীতাটি সাধারণ শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি দেশবিদেশের  সকলের কাছে উপর্যুক্ত করে তোলার জন্য আইইইই এর ফেসবুক পেইজ এ লাইভ সম্প্রচার করা হয় যেখানে প্রায় ২০০০ জনের মত ফেসবুক ব্যবহারকারী অনুষ্ঠানটি উপভোগ করেন।

প্রোগ্রামের ইভেন্ট চেয়ার এবং চুয়েটের তড়িৎ কৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. নূর মোহাম্মদ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন সম্পূর্ণ করেন। এরপর দুপুর ৩ টা থেকে শুরু করে  বিকেল সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত চলমান সেশনটিতে  ১৩টি টিম এর প্রেজেন্টেশন সম্পন্ন হয়। টানা  দুই ঘন্টা সন্ধ্যা বিরতির পর দ্বিতীয় সেশন আরম্ভ করা হয়।  ইভেন্ট চেয়ার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়েটের কম্পিউটার কৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মশিউল হক এবং একই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক লামিয়া আলম। বিরতি পরবর্তী সেশনে মোট ১২ টা টিম তাদের প্রেজেন্টেশন দেয়।

সুষ্ঠু এবং সুবিচারের মধ্য দিয়ে বিচারকগণ তিনটি টিমকে বিজয়ী ঘোষণা করেন। বিজয়ীদের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন দল হিসেবে স্থান অধিকার করে টিম রেভেনক্ল, ১ম রানার্সআপ হিসেবে টিম ভূট এবং ২য় রানার্স আপ ক্রিপ্টোনাইট।

প্রোগ্রাম শেষে ব্রাঞ্চ চেয়ার অভিষেক দাস উপস্থিত শিক্ষক, আয়োজক , অংশগ্রহণকারী , বিচারক , মিডিয়া পার্টনারসহ অনুষ্ঠানের সকল শুভানুধ্যায়ীদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, সকলের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণই প্রোগামটিকে সফল করে তুলেছে এবং ভবিষ্যতে এরকম আরো সফল প্রোগ্রামের ব্যাপারে তিনি আশাবাদী।

পুরো অনুষ্ঠানের প্রচার সম্পাদনা এবং মিডিয়া পার্টনার হিসেবে ছিলো চুয়েটনিউজ২৪.কম।